১৪ জুলাই ২০১২, রবিবার, ১১:৪০:৩০ পূর্বাহ্ন


অতি বাণিজ্যিক আচরণের অভিযোগ
ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের অভিভাবকরা দিশেহারা
নিজস্ব প্রতিনিধি
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৬-০৮-২০২৩
ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের  অভিভাবকরা দিশেহারা


ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলগুলোর অতি বাণিজ্যিক আচরণের কারণে অভিভাবকেরা দিশেহারা বলে অভিযোগ করেছেন এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা। তারা বলেন, শিশুদের এবং দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের সুরক্ষা ও সুশিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করতে সরকার, অভিভাবকবৃন্দ এবং স্কুল কর্তৃপক্ষের সমন্বিত দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করা প্রয়োজন। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, বর্তমানে অধিকাংশ ইংরেজিমাধ্যম স্কুল কর্তৃপক্ষ উচ্চ আদালতের নির্দেশ অবমাননা করে। এমনকি সরকারি নির্দেশাবলির কোনো তোয়াক্কা করে না। বরং অত্যন্ত অমানবিক ও অযৌক্তিকভাবে অভিভাবকদের বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি দেখায়। নানান ধরণের অজুহাশে দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থার সঙ্গে অসামঞ্জস্যমূলক উচ্চ হারের টিউশন ফি এবং রি-অ্যাডমিশন ফি আদায়ের অপচেষ্টায় লিপ্ত আছে। অনেক ক্ষেত্রে সন্তানদের ও মানসিকভাবে হেয় করা হচ্ছে, যা আমাদের সন্তানদের সাংবিধানিক ও মৌলিক মানবাধিকারের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

এসব অভিযোগ উঠে আসে শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল পেরেন্টস ফোরামের সংবাদ সম্মেলনে।

সংবাদ সম্মেলনে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল  পেরেন্টস ফোরামের  সভাপতি এ কে আমি আশরাফুল হক উদ্বোধনী বক্তব্যে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের রি এডমিশন ফি অবিলম্বে বন্ধ এবং মাসিক টিউশন ফি যোক্তিকরণের দাবি তুলে ধরেন। এ ছাড়া ২০১৭ সালে প্রকাশিত গেজেট অনুযায়ী ইংরেজি মাধ্যম স্কুলগুলোতে পরিচালনা ও জবাবদিহি নিশ্চিতে ম্যানেজিং কমিটিতে দুজন নির্বাচিত অভিভাবক প্রতিনিধি রাখার দাবি জানান তিনি । তিনি আশরাফুল হক সরকারি উদ্যোগে ইংরেজি মাধ্যম স্কুল খোলার দাবি জানান।  

অন্যদিকে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আজম খান বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মানের কারিকুলাম এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হওয়ায় ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে আমরা আমাদের সন্তানদের পড়াচ্ছি। এই আবেগকে পুঁজি করে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলগুলো দিনে দিনে টিউশন ফি বাড়িয়েই চলেছে। এ ছাড়া বছর বছর রি-অ্যাডমিশন ফি নিচ্ছে আদালতের আদেশ এবং সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে। কিছু কিছু বড় স্কুল আবার রি-অ্যাডমিশন ফি-কে বারো মাসের মধ্যে ভাগ করে টিউশন ফি অস্বাভাবিক হারে বাড়িয়ে দিয়েছে।’

ফেরদৌস আজম জানান, বেশির ভাগ স্কুলে ভর্তি ফি ১০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত নিচ্ছে। ইংরেজিমাধ্যম স্কুলগুলোতে মাসিক টিউশন ফি ৮ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত। আবার কিছু কিছু স্কুলে মাসিক টিউশন ফি ৮০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে আড়াই লাখ টাকা পর্যন্ত। আর ভর্তি ফি ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে আড়াই লাখ টাকা পর্যন্ত। কোনো কোনো স্কুলে ভর্তি ফি ২ লাখ টাকা থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত। এ ছাড়া অনেক স্কুল ডেভেলপমেন্ট ফি, ইউটিলিটি ফি, বিবিধ ফিসহ বিভিন্ন নামে ফি আদায় করছে।

ইংরেজিমাধ্যম স্কুলগুলোতে সার্বিক শিক্ষার মানও দিনে দিনে কমে যাচ্ছে উল্লেখ করে তাঁরা বলেন, শিক্ষকেরা স্কুলে না পড়িয়ে তাঁদের নিজেদের কোচিং সেন্টারে যেতে ছাত্রছাত্রীদের বাধ্য করছেন। এর ফলে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠছে ইংরেজিমাধ্যম কোচিং সেন্টার। অভিভাবকদের নির্বাহ করতে হচ্ছে স্কুল ফি এবং কোচিং ফি।

 

দেশের ইংরেজী মাধ্যম স্কুলে অধ্যয়নরত সকল ছাত্র ছাত্রীর অভিভাভকগনের পক্ষে ফোরামের বিভিন্ন দাবি তুলে ধরা হয়। এতে বলা হয় ইংরেজি মাধ্যম স্কুল গুলোর রি-এডমিশন ফি নেয়া অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে এবং মাসিক টিউশন ফি যৌক্তিকীকরণ করতে হবে।   সরকারী নির্দেশাবলী মেনে ২০১৭ সালে প্রকাশিত গেজেট মোতাবেক ইংরেজী মাধ্যম স্কুল গুলোকে পরিচালনা করতে হবে। স্কুলগুলোর সুষ্ঠু পরিচালনা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে দুইজন নির্বাচিত অভিভাবক প্রতিনিধি স্কুল ম্যানেজিং কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।  জাতীয় বাজেটে ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষা ব্যবস্থার জন্যে বাজেট বরাদ্ধ রাখতে হবে।  সরকারি উদ্যোগে ইংরেজি মাধ্যম স্কুল স্থাপন করতে হবে যাতে করে ইংরেজি মাধ্যম স্কুল গুলোর মধ্যে একটি সুষ্টু প্রতিযোগিতা গড়ে উঠে এবং শিক্ষার সার্বিক মান বাড়ে।  সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল পেরেন্টস ফোরামের নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন  ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন