০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, বৃহস্পতিবার, ০৪:৫৬:৩১ অপরাহ্ন


হামাস-ইসরায়েল সংঘাত মানবিক বিপর্যয় ঘটাচ্ছে
খন্দকার সালেক
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৫-১০-২০২৩
হামাস-ইসরায়েল সংঘাত মানবিক বিপর্যয় ঘটাচ্ছে


বিশ্ব মোড়লদের পারস্পরিক স্বার্থ-সংঘাতের পরিণতি ভোগ করেছে গাজা উপত্যকার নিরীহ নিষ্পাপ শিশু, নারীসহ সাধারণ মানুষ এবং অবশ্যই ইসরায়েলের বেসামরিক মানুষ। পরাশক্তিগুলোর নৈতিক দায়িত্ব উভয় পক্ষকে সংঘাত বন্ধে প্রভাবিত করা। কিন্তু বিস্ময়, জাতিসঙ্গের নিরাপত্তা পরিষদে উত্থাপিত যুদ্ধ বন্ধের প্রস্তাবে ভেটো দিয়েছে বিশ্ব মোড়ল যুক্তরাষ্ট্র। রাশিয়া এবং যুক্তরাজ্য ভোটদানে বিরত থেকেছে। বিশ্ব মিডিয়ায় প্রতিনিয়ত অসহায় মানুষের আর্তনাদ শোনা যাচ্ছে। দেশে দেশে যুদ্ধবিরোধী মানুষ রাস্তায় সোচ্চার। কিন্তু বিশ্ববিবেক জাগ্রত হচ্ছে না। এভাবে মরণঘাতী সংঘাতে জড়িয়ে কোনো কিছুর সমাধান হবে না। ইসরায়েল, প্যালেস্টাইন দুটি পৃথক স্বাধীন রাষ্ট্রের একমাত্র সমাধান।  

এদিকে সংঘাতের কারণে বিশ্ব জ্বালানি বাজার আবারও অস্থির হওয়ার আলামত পাওয়া যাচ্ছে। এমনিতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে রাশিয়ার ওপর পশ্চিমা অবরোধ জ্বালানি বাজারকে অস্থির করে রেখেছে। নিজেদের স্বার্থে ওপেক এবং রাশিয়া উৎপাদন না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে তেলের মূল্য একটি পর্যায়ে বজায় রাখছিল। ভেনেজুয়েলা এবং ইরানের তেল রফতানির ওপর অবরোধ শিথিল করার কথা ভাবছিল যুক্তরাষ্ট্র। এবারের সংঘাতে ইরানের সম্পৃক্ততা আদৌ আছে কি না জানা যায়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্র একতরফাভাবে অবরোধ কঠোর করলে পরিণতি ভয়াবহ হতে পারে। এমনিতে সংঘাতপূর্ণ এলাকা থেকে তেল রফতানি হয় না। কিন্তু সংঘাতের ব্যাপ্তি মধ্যপ্রাচ্যে বিস্তৃত হলে মহাবিপদ হবে। হরমুজ প্রণালি এবং সুয়েজ খাল দিয়ে জাহাজ চলাচল বাধাগ্রস্ত হলে জ্বালানি এবং পণ্য বাজারে আগুন লাগবে। ফলশ্রুতিতে বিশ্ববাণিজ্য সৃষ্ট নেতিবাচক প্রভাবে মুদ্রাস্ফীতি, অর্থনৈতিক সংকট সৃষ্টি হবে। ইতিমধ্যে পশ্চিম ইউরোপে রাশিয়ার পাইপলাইন গ্যাস সরবরাহ বন্ধ আসন্ন শীত মৌসুমে জ্বালানি সংকট সামাল দেওয়ার চিন্তায় পচিম ইউরোপ। এমতাবস্থায় জ্বালানি বাজার অস্থির হলে সমগ্র বিশ্ব বিশেষত জ্বালানি আমদানিনির্ভর উন্নয়নশীল দেশগুলো পড়বে মহাসংকটে। 

সার্বিক বিবেচনায় বিশ্ববিবেক জাগ্রত হওয়া বাঞ্ছনীয়। বিশেষত যুদ্ধ বন্ধের বিষয়ে ইসলামি দেশগুলোর সক্রিয় ভূমিকা রাখা গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বের সব মানুষের নিরাপদে শান্তিতে বাস করার মৌলিক অধিকার আছে। কিন্তু হামাস নিশ্চিহ্ন করার নামে যা হচ্ছে গাজা উপত্যকায়, সেটি গণহত্যা, যুদ্ধ অপরাধ ছাড়া কিছুই না।

শেয়ার করুন