২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩, শুক্রবার, ০২:৩১:৪৬ অপরাহ্ন


২২ অক্টোবরের নির্বাচনে ভোট প্রদানের আহ্বান কমিশনের
বিয়ানীবাজার সমিতি নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা
দেশ রিপোর্ট
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৬-০৯-২০২৩
বিয়ানীবাজার সমিতি নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা


প্রবাসের অন্যতম আঞ্চলিক সামাজিক সংগঠন বিয়ানীবাজার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সমিতির নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী আগামী ২০২৪-২০২৫ সমিতির কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ২ বছর মেয়াদি ১৯ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরি কমিটির নির্বাচন আগামী ২২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন হবে সকাল ৯ টা থেকে সন্ধ্যা ৮টা পর্যন্ত। নির্বাচন শেষে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করা হবে। নির্বাচনের স্থান পরে জানানো হবে বলে কমিশন সূত্রে জানা যায়। এবার ভোটার নিবন্ধন হয়েছেন অতিরিক্ত ১৯৬ ভোটসহ সর্বমোট ৭ হাজার ৬৭৯ ভোটার। নির্বাচন কমিশন  নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী নির্বাচনী প্যাকেজ সংগ্রহ করা যাবে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বিয়ানীবাজার সমিতির নিজস্ব  ভবন থেকে। মনোনয়নপত্র দাখিল ১৭ সেপ্টেম্বর বিকাল ৩টা  থেকে সন্ধ্যা ৭টা বিয়ানীবাজার সমিতির নিজস্ব ভবনে। মনোনয়নপত্র বাছাই পর্ব একই তারিখে রাত ৮টা থেকে ১০টা। সমিতির নিজস্ব ভবনে। প্রত্যাহারের তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সমিতির ভবনে। মনোনয়নপত্র সংগ্রহ, মনোনয়নপত্র জমা, বাছাই ও প্রত্যাহার সবই ওজনপার্কে ৭৮-০৮ ১০১ অ্যাভিনিউয়ের ওপর অবস্থিত বিয়ানীবাজার সমিতির নিজস্ব ভবনে সম্পন্ন হবে। ২২ অক্টোবর বিয়ানীবাজার সমিতির নির্বাচনী সময় ঘোষণা করা হলেও  এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত  কেন্দ্র চূড়ান্ত করা হয়নি। স্থান পরে জানানো হবে। নির্বাচন পরিচালনায় অভিজ্ঞতা সম্পন্ন প্রধান নির্বাচন কমিশনার হলেন বিয়ানীবাজার সমিতির সাবেক নির্বাচন কমিশনার, এমসি কলেজ অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও আল আমান মসজিদের দুই বারের নির্বাচন কমিশনার, সিলেট বিয়ানীবাজার সমিতির প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম, ঢাকাস্থ বিয়ানীবাজার সমিতির আজীবন সদস্য মহিউদ্দিন। তার সঙ্গে রয়েছেন কাজের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছালেহ আহমদ মনিয়া, হেলাল আহমদ, মোহাম্মদ আব্দুন নুর ও নুরুল ইসলাম।

আসন্ন নির্বাচন উপলক্ষে দেশ পত্রিকার সঙ্গে ডাবল ভোটার নিয়ে আলাপে প্রধান নির্বাচন কমিশনার মহিউদ্দিন বলেন, ডাবল ভোটারের ব্যাপারে কমিশন একক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে না। সবার সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেয়া  হবে। এক প্রশ্নের উত্তরে মহিলা ভোটারদের কথা উল্লেখ করে বলেন, ভোট প্রদানের  সময় তার আইডি ও সেই সঙ্গে ব্যক্তির অনাবৃত মুখাবয়ব দেখে নিশ্চিত হওয়ার পর ভোট প্রদানের সুযোগ দেওয়া হবে। মুখাবয়ব ও আইডির ছবির মিল না হলে ভোট প্রদানের সুযোগ নেই। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে একজন প্রার্থী বিশেষ করে সভাপতি অথবা সেক্রেটারি প্রার্থী কেন্দ্রের ভেতর অবস্থান করার সময় বেঁধে দেওয়ার বিষয়টি নির্বাচনী ইশতেহারে উল্লেখ করা হয়নি-এ প্রশ্নের উত্তরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, নির্বাচনের দিন সেটা  বলে  দেওয়া  হবে। ভোটারদের প্রতি প্রধান নির্বাচন কমিশনের বার্তা, স্বতঃস্ফূর্ত ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট কেন্দ্রে এসে নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট প্রদান করা। তিনি আরো জানান, মেশিনের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা হবে। মেশিনের সংখ্যা  ১৫/১৬টি এবং কেন্দ্র ১টি। নির্বাচন সুন্দর, সুষ্ঠু করতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার সবার সাহায্য ও সহযোগিতার কামনা করছেন।

শেয়ার করুন