২২ জুন ২০১২, শনিবার, ০২:৪০:৪৫ অপরাহ্ন


টি ভিসার ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম ঘোষণা
দেশ রিপোর্ট
  • আপডেট করা হয়েছে : ০১-০৫-২০২৪
টি ভিসার ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম ঘোষণা


ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটি এবং ইউএস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিসেস গত ২৯ এপ্রিল টি নন-ইমিগ্র্যান্ট স্ট্যাটাসের (টি ভিসা) সত্যতা পরীক্ষার জন্য একটি চূড়ান্ত নিয়ম ঘোষণা করেছে। নতুন নিয়মে মানব পাচারের শিকার ব্যক্তিরা সময়মতো সুরক্ষা এবং সুবিধাগুলো পেতে নিশ্চিত করবে। নন-ইমিগ্র্যান্ট অর্থাৎ টি ভিসার অধীনে মানব পাচারের শিকার ব্যক্তিরা চার বছর পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকতে পারবেন।

ইউএসসিআইএস ডিরেক্টর উর এম জাড্ডু বলেন, আমরা মানব পাচারের ফাঁদে যারা পড়েছে, তাদের রক্ষা করতে এবং সহায়তার সম্ভাব্য বাধাগুলো কমাতে উদ্যোগ নিয়েছি। এই চূড়ান্ত নিয়মটি তৈরি করতে আমাদের অনেক বছর সময় লেগেছে। এটি চালু করতে পেরে আমি আনন্দিত। এটি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গিকে পরিবর্তন করেছে। তিনি আরো বলেন, টি ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া আবেদনকারীদের সত্যতা পরীক্ষা করা হবে এবং অনেকেই উপকৃত হবেন।

মানব পাচার, যা ব্যক্তি পাচার বা আদম পাচার নামেও পরিচিত। এটি একটি অপরাধ যেখানে পাচারকারীরা মানবদের বাণিজ্যিকভাবে যৌতনা কাজসহ নানা কাজে জোরপূর্বক বাধ্য করে। অনেকে ক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে প্রতারণাও করে। ভয়ে তারা আইনের আশ্রয়ও নিতে পারে না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাচার হওয়া ব্যক্তিরা তাদের যাত্রার সময় বা তাদের গন্তব্যে পৌঁছানোর সময় মানব পাচারকারী কর্তৃক শোষণের শিকার হন। ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভিন্নভাবে নিগৃহের শিকার ব্যক্তিদের জন্য টি ভিসা চালু করেছে।

নন-ইমিগ্র্যান্ট টি ভিসা স্ট্যাটাস ভিকটিমদের সুরক্ষা প্রদান করবে। সেই সঙ্গে মানব পাচারকারীদের শনাক্ত, তদন্ত এবং বিচার করতে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার ক্ষমতা প্রদান করবে। ঘোষিত এই চূড়ান্ত নিয়মটি নন-ইমিগ্র্যান্ট টি ভিসা স্ট্যাটাসের জন্য যোগ্যতা এবং আবেদনের প্রয়োজনীয়তাগুলোকে স্পষ্ট করে যে, ক্ষতিগ্রস্তদের সম্ভাব্য বাধা কমাতে এবং আবেদনগুলো আরো দক্ষতার সঙ্গে প্রক্রিয়া করতে সক্ষম করার বিধান অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

নিয়মের মূল উপাদানগুলো

১. গুরুতর ক্ষতি, অপব্যবহারের বিষয়টি নিশ্চিত করা এবং ২০০০ সালের পাচারকারী ভিকটিমস প্রোটেকশন অ্যাক্টে বর্ণিত ধারাবাহিকতা এবং মান নিশ্চিত করা।

২. অতিরিক্ত প্রমাণের জন্য রিপোর্টিং করা এবং তা প্রমাণ করা।

৩. পাচারের রিপোর্টে কাজ করার জন্য আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার ক্ষমতাকে সুগম করা যাতে শিকার ব্যক্তিরা পাচারের ঘটনাগুলো আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাকে অবহিত করা।

৪. জালিয়াতি বিরোধী ব্যবস্থা গ্রহণের সঙ্গে সঙ্গে প্রসিকিউশন প্রক্রিয়াকে সহজ করা।

ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটি মানব পাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছে। যাতে তারা সব জাতিকে রক্ষা করতে পারে এবং অপরাধগুলো বন্ধ করতে পারে। ২০২০ সালে চালু হওয়া মানব পাচার প্রতিরোধের জন্য ডিএইচএস সেন্টার আইনপ্রয়োগকারী অপারেশন, ভিকটিমের সুরক্ষা এবং সহায়তা ও প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মাধ্যমে মানব পাচার প্রতিরোধে ১৬ টি ডিএইচএস অফিস চালু করে। ব্লু-ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে মানব পাচার প্রতিরোধে ডিএইচএস সেন্টার মানব পাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য প্রস্তুত এবং জনসচেতনতামূলক প্রচেষ্টা গ্রহণ করে। অনলাইনে শিশুদের যৌন নির্যাতন এবং অপব্যবহারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করার জন্য ডিপার্টমেন্ট অব হোমল্যান্ড সিকিউরিটির চলমান প্রচেষ্টাগুলো ২০২৩ সালের এপ্রিলে রিভিউ করা হয়। 

দোহার-কাতার এবং তুরস্কে আন্তর্জাতিক ফিল্ড অফিস খুলবে ইউএসসিআইএস 

ইউএস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিসেস (ইউএসসিআইএস) ২৯ এপ্রিল শরণার্থীদের আবেদন প্রক্রিয়াকরণে ক্ষমতা বৃদ্ধি, কৌশলগত অংশীদারিত্ব জোরদার এবং আন্তঃসংস্থা সহযোগিতার সুবিধার্থে দোহা, কাতার এবং তুরস্কের আঙ্কারায় আন্তর্জাতিক ফিল্ড অফিস খোলার ঘোষণা দিয়েছে।

এই ফিল্ড অফিসগুলো খোলার ফলে মধ্যপ্রাচ্যের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ইউএসসিআইএস উপস্থিতি এবং দক্ষতা প্রতিষ্ঠিত হবে। এর ফলে নিরাপদ, আইনানুগ, সুশৃঙ্খল অভিবাসন এবং পারিবারিক পুনর্মিলন সহজতর হবে। ইউএসসিআইএস পরিচালক উর এম জাদ্দু বলেন, বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসনের এই প্রচেষ্টার প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতি থাকবে। সেই সঙ্গে দোহা-কাতার এবং তুরস্কে আমাদের উপস্থিতি উপস্থিতি থাকবে। এটা মার্কিন অভিবাসনব্যবস্থার অখ-তাকে আরো শক্তিশালী করবে বলে আমি আশাবাদী।

২০২৪ সালের ৭ মে দোহা ফিল্ড অফিস এবং ২০২৪ সালের ৯ মে আঙ্কারা ফিল্ড অফিস খোলা হবে। এখন পর্যন্ত ইউএসসিআইএসের ১১টি আন্তর্জাতিক ফিল্ড অফিস রয়েছে। আন্তর্জাতিক ফিল্ড অফিসগুলো রয়েছে বেইজিং, গুয়াংজু, চীন; গুয়াতেমালা সিটি, হাভানা, মেক্সিকো সিটি, নাইরোবি, কেনিয়া, নতুন দিল্লি, সান সালভাদর, এল সালভাদর, এবং টেগুসিগালপা, হন্ডুরাস।

বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসন ২০২৪ সালে ১ লাখ ২৫ হাজার শরণার্থী আনার পরিকল্পনা নিয়েছে। কাতার এবং তুরস্কে ইউএসসিআইএস ফিল্ড অফিস শরণার্থীদের আবেদন করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে সাহায্য করবে।

শেয়ার করুন