২২ জুন ২০১২, শনিবার, ০৩:০৮:৪৮ অপরাহ্ন


সংবর্ধনা সভায় আসিম মাহমুদ
আপনাদের ভালোবাসায় আমি মুগ্ধ
দেশ রিপোর্ট
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৩-১১-২০২২
আপনাদের ভালোবাসায় আমি মুগ্ধ প্রধান অতিথিকে ক্রেস্ট প্রদান


আমি বিশ্বের দেশে ভ্রমণ করেছি। অনেক জায়গায় আমাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। কিন্তু আজকের অনুষ্ঠানটি আমার কাছে সেরা। আপনারা আমাকে যে ভালোবাসা এবং আতিথিয়েতা দেখিছে তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ এবং আমি মুগ্ধ। আজকে কাজের দিনেও আপনারা গভীর রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করছেন। এটা নারায়ণগঞ্জের মানুষের পক্ষেই সম্ভব। কারণ নারায়ণগঞ্জের মানুষের অন্তরটা অনেক বড়। আপনারা হচ্ছেন আমার আত্মার আত্মা। তবে আপনাদের কাছে আমার একটা অনুরোধ থাকবে আর সেটি হলো আপানারা ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ হোন। আমরা সবাই জানি আমাদের শরীরের নারায়ণগঞ্জের রক্ত মিশে আছে। আপনারা ভাল থাকলে আমরা ভালো থাকি এবং গর্বিত হই। আপনারা একত্রে থাকবেন অনন্ত নতুন প্রজন্মের জন্য। আপনারা একত্রে থাকলে তারা উপকৃত হবে। আমি জানি তারা হয়ত দেশে যাবে না কিন্তু তাদের একটি সুন্দর পরিবেশ দিয়ে যান এবং একটি সুন্দর নারায়ণগঞ্জ দিয়ে যান- যেখানে থাকবে না কোন বিভেদ। এ কথাগুলোতে বলেছেন নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডের সভাপতি আসিফ মাহমুদ মানু।

আসিফ মাহমুদ মানুর নিউইয়র্ক আগমল উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ জেলা সমিতি অব উত্তর আমেরিকা ইনকের আয়োজনে এক গণসংবর্ধনা সভা, পিঠা উৎসব এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আয়োজন করা হয়। গণ সংবর্ধনা সভাটি গত ২৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় উডসাইডের কুইন্স প্যালেসে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি মির্জা ফরিদ উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং সাংবাদিক আশরাফুল ইসলাম বুলবুলের পরিচালায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম, বাংলাদেশ সোসাইটির ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য কাজী আজহারুল হক মিলন, বাংলাদেশ সোসাইটির কোষাধ্যক্ষ এবং সংগঠনের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আলী, সাবেক সভাপতি শামসুল ইসলাম লিটন, সিলেট ক্লাবের সভাপতি মহিতুল বারী রহমান, নাসির উদ্দিন, ডা. শামীম আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা জামাল শামীম, লায়ন্স ক্লাবের সভাপতি আহসান হাবিব।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলী হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর তুহিন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আসফ মাহমুদ মানু বলেন, আমি নিউইয়র্কে এসেছি এক সপ্তাহ হলো। এই সপ্তাহ আমি দেশকে দেখিনি আজকে দেখলাম। তিনি বলেন, আমি বিশ্বের দেশে ভ্রমণ করেছি। অনেক জায়গায় আমাকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। কিন্তু আজকের অনুষ্ঠানটি আমার কাছে সেরা। আপনারা আমাকে যে ভালবাসা এবং আতিথিয়েতা দেখিছে তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ এবং আমি মুগ্ধ। আজকে কাজের দিনেও আপনারা গভীর রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করছেন। এটা নারায়ণগঞ্জের মানুষের পক্ষেই সম্ভব। কারণ নারায়ণগঞ্জের মানুষের অন্তরটা অনেক বড়। আপনারা হচ্ছেন আমার আত্মার আত্মা। তবে আপনাদের কাছে আমার একটা অনুরোধ থাকবে আর সেটি হলো আপানারা ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ হোন। আমরা সবাই জানি আমাদের শরীরের নারায়ণগঞ্জের রক্ত মিশে আছে। আপনারা ভাল থাকলে আমরা ভাল থাকি এবং গর্বিত হই। আপনারা একত্রে থাকবেন অনন্ত নতুন প্রজন্মের জন্য। আপনারা একত্রে থাকলে তারা উপকৃত হবে। আমি জানি তারা হয়ত দেশে যাবে না কিন্তু তাদের একটি সুন্দর পরিবেশ দিয়ে যান এবং একটি সুন্দর নারায়ণগঞ্জ দিয়ে যান- যেখানে থাকবে না কোনো বিভেদ। তিনি আরো বলেন, আপনারা মেম্বার না তারা আসতে পারবেন এবং মিনিমাম চার্জে অনুষ্ঠান করতে পারবেন। আমাদের ক্লাব ব্যবহার করতে পারবেন। তিনি বলেন, আপনারা জানেন, প্রায় দেড় মাস আগে আমাদের নারায়ণগঞ্জের আব্দুল খালেদ এসেছিলেন। তিনি সাইকেল চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হন। আমার কয়েকজন বন্ধু আমাকে ওই সময় জানিয়েছিলেন। তারা হাসপাতাল থেকে ফোনে তার অবস্থা দেখিয়েছিলেন। তার বুকের পাজর ভেঙে গিয়েছিলো, আপনারা কয়েজন দেখতে গিয়েছিলেন। সেই জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। প্রবাসে সংগঠন করার সার্থকতা এখানেই। তিনি বলেন, তখন বলেছিলেন তার বাঁচার সম্ভাবনা কম। আমি তাকে দেখতে গিয়েছি। আমি কথা বলেছি। তার স্ত্রীকে ভিসা দেয়া হয়েছে। তিনি অনেকটা মানবেতর অবস্থায় রয়েছেন। স্বামীর সাথেই একই রুমে রয়েছেন। তিনি বড় অসহায়। তার সন্তানদের ভিসা দেয়া হয়নি। তিনি বড় অসহায়। আমি আপনাদের অনুরোধ করবো তার পাশে দাঁড়ান। তাকে সহযোগিতা করুন। মোহাম্মদ আলীর এক প্রস্তাবে তিনি বলেন, অবশ্যই আপনাদের ইউজার মেম্বার করা হবে। তবে আপনাদের ভোটাধিকার থাকবে না, তবে সকল সুযোগ সুবিধা থাকবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিকে সংগঠনের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও প্রধান অতিথিকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান দোলন। প্রধান অতিথি সংগঠনের নেতৃবৃন্দের স্ত্রীদের তৈরি পিঠা উৎসব উদ্বোধন করেন। অন্যদিকে তিনি একটি কেকও কাটেন। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পীরা।

অনুষ্ঠান সফল করতে সহযোগিতা করেন আলী হোসেন, জাহিদুর রহমান জনি, সোহেল আহমেদ, ইঞ্জিনিয়ার মহসিন মাহমুদ, মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন, শরিফ হোসেন তনয়, জহির হোসেন, মোহাম্মদ আজিম, মোহাম্মদ সাঈদ, রফিকুজ্জামান, সেলিম আহমেদ, আনিসুর রহমান, মনির হোসেন, ডা. সাঈদা সাবরিন পম্পি, আয়েশা আক্তার, তপন কুমার, ফারহানা আমান নূপুর, শিরিন খান, নিপা জামান, লোপা আক্তার, সবুজ মিয়া, এসএমকে ইকবাল, মোস্তাফিজুর রহমান, নাজমুল হোসেন সোহাগ প্রমুখ।

শেয়ার করুন