২৫ মে ২০১২, শনিবার, ০৯:১৬:৪৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী অপরাধী যত প্রভাবশালীই হোক শাস্তি তাকে পেতেই হবে- ওবায়দুল কাদের মানুষের ক্ষতি যারা করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত থাকবে- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাবেক আইজিপি বেনজির আহমেদের সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ মেয়াদোত্তীর্ণ নৌযান ও নদী দখল-দূষণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ুন - পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের শান্তিরক্ষা মিশন থেকে বাদ দেয়া হবে- ডোজারিক গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার দাবিতে গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের সমাবেশ হেলিকপ্টার দূর্ঘটনায় ইরানের প্রেসিডেন্ট সহ অন্যান্যদের মৃত্যুতে বিএনপির শোক ভারতে ঘুরতে যেয়ে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য খুন তামাকমুক্ত লক্ষ্য অর্জনে শক্তিশালী তামাককরের বিকল্প নেই


হাসিনার পদত্যাগ ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি স্টেট বিএনপির
দেশ রিপোর্ট
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৫-০২-২০২৩
হাসিনার পদত্যাগ ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি স্টেট বিএনপির নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির পথযাত্রা ও বিক্ষোভ সমাবেশ


বর্তমান শেখ হাসিনা সরকারের পদত্যাগ এবং নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের দাবি জানিয়েছে নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপি। সেই সঙ্গে তারা বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও তারুণ্যের প্রতীক তারেক রহমানের সব মামলা প্রত্যাহার করে তাকে দেশে প্রত্যাবর্তনের দাবিও করা হয়। বিএনপির ১০ দফার সমর্থনে ১১ ফেব্রুয়ারি নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির উদ্যোগে পদযাত্রায় এসব দাবি করা হয়। বাংলাদেশি অধ্যুষিত জ্যাকসন হাইটসের ডাইভারসিটি প্লাজায় অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে যুক্তরাষ্ট্র যুবদল, শ্রমিক দল, জাসাসের নেতাকর্মীরাও ছিলেন। এ সময় স্লোগান ওঠে ক্ষমতাসীন সরকারের দমন-পীড়নের নিন্দা জানিয়ে। বক্তারা বলেন, মামলা-হামলায় কখনো আন্দোলন দমন করা সম্ভব হয়নি, এবারও সম্ভব হবে না।

নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির আহ্বায়ক মওলানা অলিউল্লাহ আতিকুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব সাঈদুর রহমান সাঈদ এবং যুগ্ম সদস্য সচিব রিয়াজ মাহমুদের পরিচালনায় কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট জামাল আহমেদ জনি। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রফিকুল ইসলাম, জাসাসের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক গোলাম ফারুক শাহীন, বিএনপি নেতা মার্শাল মুরাদ, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার মঞ্চের সভাপতি ও নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির অন্যতম সদস্য জসিম উদ্দিন ভিপি, যুগ্ম আহ্বায়ক নাসিম আহমেদ, বদরুল হক আজাদ, নীরা রাব্বানী, দেওয়ান কাওসার, মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন, মোহাম্মদ আরিফুর রহমান, যুগ্ম আহ্বায়ক আনিসুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহেদ আলী ম-ল, বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মশিউর রহমান।

অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন মোহাম্মদ রইচ উদ্দিন, আবদুল কাইয়্যুম, জিয়াউর রহমান মিলন, আলমগীর হোসেন, রুবেল হাসান, শ্রমিকদল যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি জাহাঙ্গীর এম আলম, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তাক আহমেদ, সেক্রেটারি মোহাম্মদ আনোয়ারুল হোসেন শাহীন, স্টেট শ্রমিকদলের সভাপতি হুমায়ুন কবীর, যুবদলের নেতা মনির হোসেন। পদযাত্রায় স্লোগানে নেতৃত্ব দেন যুবদলের মীর মিজান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অ্যাডভোকেট জামাল আহমেদ জনি বলেন, বাংলাদেশে ইউনিয়ন এবং থানা পর্যায় থেকে বিএনপির এই কর্মসূচি শুরু হয়েছে। তারাই ধারাবাহিকতায় আজকে নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপি এই কর্মসূচি পালন করছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে এখন গণতন্ত্র হত্যাকারী ফ্যাসিস্ট, নব্য বাকশাল এবং ভোট চোর শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায়। এই সরকার ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। তারাই আমরা এই নব্য স্বৈরাচারী সরকারের পদত্যাগ দাবি করছি। এই সরকার যদি পদত্যাগ না করে, তাহলে আন্দোলনের মাধ্যমে এই সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করা হবে। সেই সঙ্গে তিনি নাটোর ও ঝালকাঠিতে বিএনপির শান্তিপূর্ণ পদযাত্রায় সরকারি সন্ত্রাসী বাহিনী এবং পেটোয়া পুলিশ বাহিনীর হামলার তীব্র পতিবাদ জানান।

শ্রমিক দলের সভাপতি জাহাঙ্গীর এম আলম বলেন, আন্দোলন করেই শেখ হাসিনা সরকারের পদত্যাগ ঘটিয়ে বাংলাদেশকে এবং বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে হবে।

গোলাম ফারুক শাহীন বলেন, শেখ হাসিনা সরকারের অধীনে বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। গত ১৪ বছর ধরে এই সরকার ভোট চুরি করে ক্ষমতায় রয়েছে। তিনি বাংলাদেশকে এবং বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে হলে শেখ হাসিনাকে পদত্যাগে বাধ্য করা হবে।

ভিপি জসীম বলেন, বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে হলে শেখ হাসিনার পদত্যাগ ঘটিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সেই সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে এবং তারেক রহমানের সব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

সভাপতির সমাপনী বক্তব্যে মওলানা অলিউল্লাহ আতিকুর রহমান বলেন, বিএনপির বাংলাদেশের কর্মসূচির সাথে সঙ্গতি রেখে পরবর্তী প্রতিটি কর্মসূচি নিউইয়র্কে পালন করা হবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সবকে সরব থাকতে হবে এবং শেখ হাসিনার পদত্যাগ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

শেয়ার করুন