২২ জুন ২০১২, শনিবার, ০৪:২২:২৮ অপরাহ্ন


বাংলাদেশী আমেরিকার অ্যাডভোকেসির লবি ডে
দেশ রিপোর্ট
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৯-০৫-২০২৪
বাংলাদেশী আমেরিকার অ্যাডভোকেসির লবি ডে প্রেসিডেন্ট জয়নাল আবেদীন


নিউইয়র্ক স্টেট জুড়ে ঈদের ছুটি, ইসরাইলের গণহত্যায় ফান্ড বন্ধ করাসহ নানা দাবিতে আলবানিতে ১০ম বাংলাদেশি আমেরিকান অ্যাডভোকেসি ডে। গত ২১ মে মঙ্গলবার নিউইয়র্কের রাজধানী আলবেনীতে বাংলাদেশী আমেরিকান এডভোকেসী গ্রুপ (বাগ), নিউইয়র্ক মুসলিম একশন নেটওয়ার্ক (এনওয়াইম্যান) এবং দি কাউন্সিল অন আমেরিকান রিলেসন্স (কেয়ার এনওয়াই) এর যৌথ উদ্যোগে নিউইয়র্ক স্টেটে বসবাসরত দেড় মিলিয়ন মুসলিম এবং অন্যান্য মাইনরিটি পিপলের পক্ষে ১০তম লেজিসলেটিভ ডে ২০২৪ উদযাপন হল নিউইয়র্কের রাজধানী আলবেনীতে। প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও নিউইয়র্ক স্টেটে বসবাসরত মুসলমানের পক্ষে নানাবিধ দাবি দাওয়া এবং স্পেসিফক কিছু বিল নিয়ে নিউইয়র্ক স্টেট ক্যাপিটাল আলবেনীর উদ্দেশে ২১ মে মঙ্গলবার সকাল ৬টা ৩০ মিনিটের সময় নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস, জ্যামাইকা এবং ব্রঙ্কস থেকে প্রায় দেড় শতাধিক কমিউনিটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ, পেশাজীবী, স্কুল কলেজ স্টুডেন্টদের নিয়ে বাস যোগে এবং ব্যাক্তি গাড়ি নিয়ে রওয়ানা হন। বাসের মধ্যে বাগ, এনওয়াইম্যান, এবং কেয়ার এনওয়াইএর দায়িত্বরত নেতৃবৃন্দ সকালের নাস্তা পরিবেশনের পরে উপস্থিত সকলের উদযেশ্যে লবি ডে’র করণীয় নিয়ে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য দিয়ে সবাইকে যার যার আইডি এবং ব্যাচ বুঝিয়ে দেন। ২০ জন টীম লিডার দিয়ে ২০ টি গ্রুপ করে এবং প্রতিটি গ্রুপে তিনজন কিংবা চারজন সদস্য দিয়ে প্রত্যেক টীম লিডারকে বিলের কপি, লবি ডে উপলক্ষে প্রকাশিত ম্যাগাজিন এবং পূর্ব নির্ধারিত লেজিসলেটিভদের সংগে নির্ধারিত স্কেজুয়ালের কপি বুঝিয়ে দেন। ২০ টি টীমের সমন্বয়করে দ্বায়িত্বে ছিলেন বাগ’র কোষাধ্যক্ষ ইঞ্জিনিয়ার রহীম এবং ব্রিগেডিয়ার জেনারেল তোফায়েল আহমেদ পিএসসি (অবঃ) ও আলী নূর। সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে নিউইয়র্ক স্টেট ক্যাপিটালে বাস পৌঁছালে লবি ডে স্পন্সর কৃত সিনেটর রবার্ট জ্যাকসন, সিনেটর জেসিকা স্কারসিলা স্পান্টন এবং সিনেটর জেসিকা রামোস অফিস প্রতিনিধি এবং এসেম্বলী মেম্বার জোহরান মামদানী ও এসেম্বলী মেম্বার চার্লস ডি ফল সবাইকে অভিবাদন জানিয়ে সিকিউরিটি সম্পন্ন করে লেজিসলেটিভ বিল্ডিংএর পূর্ববরাদ্দ কৃত রুম ২১১ এবং ২১১এ নিয়ে যান। ২০জন টীম লিডার তাদের দলভুক্ত সদস্যদের নিয়ে ৬০+ পূর্বনির্ধারিত ইলেকটেড অফিসিয়াল লেজিসলেটিভদের সংগে মিটিংএর উদ্দেশ্যে বেড়িয়ে পড়েন। বাংলাদেশী আমেরিকান এডভোকেসী গ্রুপের প্রসিডেন্ট জয়নাল আবেদীন, সাধারণ সম্পাদক শাহানা মাসুম বোর্ড অফ ডিরেক্টর আশিক মাহমুদ, এনওয়াইম্যান প্রেসিডেন্ট মীর মাসুম আলী, ভাইস প্রেসিডেন্ট ডক্টর আব্দুস সালাম মুসা এবং কেয়ার এনওয়াইএর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর আফাফ নাসের এটর্নি জেনারেল লাটিসা এনন জেমস অফিস, এসেম্বলী মেজরিটি লিডার ক্রিস্টাল পিপলস স্টোকস্ , সিনেট মেজরিটি এনিড্রিয়া স্টুয়ার্ট কাউজিন, এবং গভর্নর অফিস মিটিং সম্পন্ন করেন। শুরুতেই বাগ’র প্রেসিডেন্ট জয়নাল আবেদীন নিজের পরিচয় দিয়ে অন্যান্য দলনেতাদেরকে লেজিসলেটিভদের সংগে পরিচয় করিয়ে দিয়ে নিউইয়র্ক স্টেটে বসবাসরত দেড় মিলিয়ন মুসলমানের জন্য মুসলমানের সর্ববৃহত ধর্মীয় হলিডে পুরো নিউ ইয়র্ক স্টেটে ঈদ উল-ফিতর এবং ঈদ উল-আযহা সরকারি ছুটি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা আইন অনুযায়ী নিউ ইয়র্ক স্টেটের নির্দিষ্ট সরকারি স্কুলগুলিতে হালাল এবং কোশার খাদ্য বিকল্প দেওয়ার দাবি জানিয়ে বিলের কপি তুলে দিয়ে বলেন, গত তিরিশ বছরের রেকর্ড পর্যালোচনা করে দেখা গেছে তিরিশ বছরে তিরিশ দিন ঈদ হলিডে পড়েছে কারণ যেহেতু ঈদ নির্ধারিত হয় লুনার ক্যালেন্ডারের মাধ্যমে তাই দেখা যায় অন্যান্য হলিডের সাথেও কখনও মিলে যায়। হালাল ফুড প্রসংগে বলেন, আপাতদৃষ্টিতে মনে হয় হালাল ফুড একটু দামী কিন্ত সাধারণ ফুড পরিবেশন করলে ৮০% ফুড কনজিউম হয় না। মাত্র ২০% ফুড কনজিউম হয়, বাকি ৮০% ফুড গার্বেজ করতে হয়। পক্ষান্তরে গবেষণা করে দেখা গেছে হালাল ফুড পরিবেশন করলে ১০০% ফুড কনজিউম হয়।

কেয়ার এনওয়াই এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর আফিফা নাসের বলেন, গাজা কিংবা প্যালেস্টাইনের পক্ষে আন্দোলনকৃত নিরীহ ও সাধারণ ছাত্রদের উপর নিউইয়র্ক সিটি পুলিশের বর্ররোচিত হামলার বিষয় তুলে ধরে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়ে দোষী পুলিশের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা এবং গ্রেফতারকৃত ছাত্রদের যেনো কোনো শাস্তির আওতায় না আনা হয় তার দাবি জানান।

এনওয়াই ম্যান সভাপতি মীর মাসুম আলী বলেন, ১.৫ মিলিয়ন মুসলমানের জন্য নিউ ইয়র্ক মুসলিম আমেরিকান উপদেষ্টা পরিষদ প্রতিষ্ঠা করা মুসলিম কমিউনিটির বিরুদ্ধে আর্থিক বৈষম্য মোকাবেলা বন্ধ করতে সংগঠনগুলো সুদমুক্ত বিনিয়োগ বন্ড তৈরির প্রস্তাব করেন। তিনি বলেন, যারা সুদভিত্তিক বিনিয়োগে অংশগ্রহণ করতে চায় না এমন কমিউনিটিগুলোর জন্য স্টেটকে সমান আর্থিক সুযোগ দিতে হবে । মুসলিম নাম দেখে কোনো কারণ না দেখিয়ে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে তাদের একাউন্ট বন্ধ করে দেয়ার বিষয়ে অবহিত করে বিলের কপি তুলে দেন। সবগুলো মিটিং সমন্বয় করেন বাগ’র সাধারণ সম্পাদক শাহানা মাসুম। এডভোকেসি ডে’র আয়োজকরা প্রেস কনফারেন্স করেন। এতে বক্তব্য রাখেন জয়নাল আবেদিন, ড. আবদুস সালাম মুসা, অ্যাসেম্বলিমেম্বার জোহরান কে. মামদানি, মির মাসুম আলী, সিনেটর কেভিন পার্কার, সিনেটর রবার্ট জ্যাকসন এবং আফাফ নাশের। তারা বাংলাদেশী কমিউনিটিকে আগামীতে তাদের সাথে আলবেনিতে যোগ দানের এবং সবাই মিলে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং ন্যায়সঙ্গত সমাজ গড়ে তোলার জন্য কাজ করার আহবান জানান।

দুপুর দুইটা পনের মিনিটে এসেম্বলী মেম্বার জোহরান মামদানী ও চার্ল ডি ফল অংশগ্রহণকারীদের এসেম্বলী অধিবেশন হাউজে নিয়ে প্রবেশ করেন। স্পিকারের ডান পাশের আসনে বসা মুফতি ইমাম আনসারুল করিমের পবিত্র কোরআন তেলোয়াতে ও তরজমার মধ্যদিয়ে স্পীকার এসেম্বলী অধিবেশন শুরু করেন। অধিবেশনের শুরুতেই বাগ, কেয়ার এনওয়াই ও এনওয়াইম্যান কর্মকর্তাদের এবং বাংলাদেশী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দকে রিকগনিশন দিয়ে এসেম্বলীমেম্বার জোহরান মামদানী অধিবেশনে লবি ডে’র বিলগুলো উত্থাপন করেন। হাউজ কক্ষে উপস্থিত সকলে করতালির মাধ্যমে উত্থাপিত বিলের প্রতি সমর্থন জানান । বিকেল তিনটা তিরিশ মিনিটে সিনেট কক্ষে নেতৃবৃন্দকে রিকগনিশন দেন সিনেটর জেসিকা রামোস। লবি ডে’র সমাপনী পর্বে বাগ’র পক্ষ থেকে সভাপতি জয়নাল আবেদীন এপ্রিসিয়েসন সার্টিফিকেট দিয়ে যাদেরকে সম্মানিত করেছেন তারা হলেন মীর মাসুম আলী সভাপতি এনওয়াইম্যান, আলী নূর, মাহতাব খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ঝিনুক, মোঃ রুহুল আমিন সেকেরেটারী বাংলাদেশ সোসাইটি, এমএ আজিজ সাবেক সভাপতি ও ট্রাস্টি বাংলাদেশ সোসাইটি।

শেয়ার করুন