২৫ মে ২০১২, শনিবার, ০৭:১৬:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী অপরাধী যত প্রভাবশালীই হোক শাস্তি তাকে পেতেই হবে- ওবায়দুল কাদের মানুষের ক্ষতি যারা করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত থাকবে- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাবেক আইজিপি বেনজির আহমেদের সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ মেয়াদোত্তীর্ণ নৌযান ও নদী দখল-দূষণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ুন - পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের শান্তিরক্ষা মিশন থেকে বাদ দেয়া হবে- ডোজারিক গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার দাবিতে গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের সমাবেশ হেলিকপ্টার দূর্ঘটনায় ইরানের প্রেসিডেন্ট সহ অন্যান্যদের মৃত্যুতে বিএনপির শোক ভারতে ঘুরতে যেয়ে বাংলাদেশের সংসদ সদস্য খুন তামাকমুক্ত লক্ষ্য অর্জনে শক্তিশালী তামাককরের বিকল্প নেই


‘মঞ্চ বানাতেও চুরি’- টুকু
বিশেষ প্রতিনিধি
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৬-০১-২০২৩
‘মঞ্চ বানাতেও চুরি’- টুকু


সর্বত্র দুর্নীতি চলছে উল্লেখ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, ‘‘আজকে আমি একটু অবাক হলাম যে, মঞ্চ বানাতেও লুটপাট হয় এই দলে। সেটা আবার মঞ্চে দাঁড়িয়ে এই দলের সাধারণ সম্পাদক পড়ে যান। কারণ তো ওখানেও চুরি হয়েছে।ঠিক মতো মঞ্চ তৈরি হয় নাই।”

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির দশম কংগ্রেসে জাতীয় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এই মন্তব্য করেন। এ-র পাশাপাশি একজনের ইচ্ছা‘য়  দেশ চলছে বলে ও মন্তব্য করেছেন ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

তিনি বলেন, ‘‘ আমরা মুক্তিযুদ্ধে করেছিলাম একটা গণতন্ত্রের জন্য। সেই গণতন্ত্র আজকে বিলিন হয়ে গেছে। গণতন্ত্র বলে কিছু নাই।”

‘‘এখন একজনতন্ত্র । উনি যা ইচ্ছা করেন সেটাই রাষ্ট্রের ইচ্ছা, উনি যা ইচ্ছা করেন সেটাই হয়। তাছাড়া আর কারো ইচ্ছা দেশে চলে না।”

এই অবস্থার পরিবর্তনে বিরোধী ঐক্যে গড়ে উঠেলে উল্লেখ করে ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, ‘‘ আমরা আজকে একত্রিত হয়েছি যুগপত আন্দোলন করছি এই ‘একজনের ইচ্ছাকে ভেঙে বহুজনের ইচ্ছার দাম দেয়ার জন্য।”

‘‘ এই অবস্থার মধ্যে জনগন আর থাকতে চায় না। আমরা ১০ টি বিভাগীয় সমাবেশ করেছি। বাধা-বিপত্তি পার হয়ে ছিড়া-গুড় নিয়ে একদিনের মিটিং তিনদিনে করেছি।নদী সাতরিয়ে মানুষ মিটিংয়ে এসেছে। তার অর্থ জনগন এই সরকারকে আর চায় না।”

আগামী ১১ জানুয়ারি ঢাকাসহ সারাদেশে গণঅবস্থান কর্মসূচি হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘ আমাদের ঐক্যের মাধ্যমে দেশে যে আন্দোলন হবে তাতে এই সরকারকে বিদায় নিতে হবে। সেটা কিন্তু বেশি দূরে না।”


‘‘ আমাদের অবস্থান প্রতিবাদ হবে ঐতিহাসিক। আমি এই কংগ্রেসকে আহবান করছি যে, জনগন যে আমাদের যুগপত কর্মসূচিতে উপস্থিত হয়ে এই সরকারকে বুঝিয়ে দেয় যে, তাদের সাথে মানুষ নেই। আমি মনে করি, জনগন জেগে উঠেছে। অবশ্যই এই সরকারকে যেতে হবে। জনগনের কাছে কেউ টিকতে পারেনি, তারাও পারবে না।”

রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির দশম কংগ্রেস শুরু হয়। চারদিনব্যাপী এই কংগ্রেস শেষ হবে ৯ জানুয়ারি।

শুক্রবার সকালে ইন্সটিটিউট প্রাঙ্গনে দলীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে এই কংগ্রেস শুরু হয়। এর গণস্বাস্থ্যে ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী জাতীয় ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক দলীয় পতাকা উত্তোলন করে এই আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

‘মঞ্চ বানাতেও চুরি’

‘‘ এখন ওদের ছাত্র সংগঠনের মধ্যেওৃ যদিও ওদের ছাত্র সংগঠনের একজন জেলা নেতার কাছে ২ হাজার কোটি টাকা পাওয়া যায়। এমন কোনো জায়গা নেই যেখানে লুটপাট হয় না এবং সেই লুটের টাকা আবার বিদেশে পাচার হয়ে যায়।”

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হকের সভাপতিত্বে কংগ্রেস প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব আকবর খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি(মাক্সবাদী-লেলিনবাদী লিবারেশন) এর পলিটব্যুরোর সদস্য কার্তিক পাল, জাতীয়  সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সভাপতি আসম আবদুর রব, জাতীয় গণফ্রন্টের সমন্বয়ক টিপু বিশ্বাস, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সম্পাদক ফয়জুল হাকিম, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল্লাহ কায়সার প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।



শেয়ার করুন