২২ জুলাই ২০১২, সোমবার, ০৭:২২:৩৮ অপরাহ্ন


দেশকে মনোজ প্রামাণিক
নতুনদের ইন্ডাস্ট্রিতে সময় দিতে হবে
আলমগীর কবির
  • আপডেট করা হয়েছে : ১০-০৭-২০২৪
নতুনদের ইন্ডাস্ট্রিতে সময় দিতে হবে মনোজ প্রামাণিক


মনোজ প্রামাণিক। মডেল ও অভিনেতা। ২০২৩-২৪ অর্থবছরে সিনেমা নির্মাণের জন্য প্রযোজক হিসেবে অনুদান পেয়েছেন অভিনেতা মনোজ প্রামাণিক। ‘সেয়ানা’ নামের সিনেমাটি পরিচালনা করবেন ইকবাল হাসান খান। এ নিয়ে তিনি কথা বলেছেন নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত পাঠকপ্রিয় দেশ পত্রিকার সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আলমগীর কবির

প্রশ্ন: আপনার অভিনয়ের শুরুর দিকটা একটু জানতে চাই?

মনোজ প্রামাণিক: বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় একটা ডিজিটাল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছি। রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো একটা পাগলের চরিত্রে। তারপর তো ঢাকায় এসে নানা ধরনের কাজ করেছি। সত্যি কথা বলতে অভিনয়কে ভালোবেসে আমি শোবিজে নাম লিখিয়েছি। 

প্রশ্ন: কিন্তু আপনি নাকি সহকারি পরিচালক হওয়ার জন্য ঢাকায় এসেছিলেন?

মনোজ প্রামাণিক: এটা সত্যিই শুনেছেন। তবে আমি জীবনের লক্ষ্য কখনোই নির্ধারণ করতে পারিনি। তাই ঠিক আছে কি না, বলতে পারছি না। আমি আসলে কনফিউজড ছিলাম সব সময়। অভিনয় করব? বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতা করব? পরিচালনা করব? নাকি অন্য কিছু? অনেক ভাবনা চিন্তা করে এবং কাজের মধ্য দিয়ে এসেও নির্ধারণ করতে পারছিলাম না আমার আসলে লক্ষ্য কী? তাই নিজেকে ছেড়ে দিয়েছিলাম। যখন যেটা ইচ্ছা হয়েছে, সেটাই করেছি। শেষ পর্যন্ত যেখানে গিয়ে দাঁড়াব, সেটাই হয়তো চূড়ান্ত। তাই এখন এসব নিয়ে অত ভাবি না।

প্রশ্ন: একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ফিল্ম স্টাডিজ’ বিভাগে শিক্ষকতার সঙ্গে যুক্ত আছেন। এ মাধ্যমের শিক্ষার্থীরা চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে কেমন করছে বলে মনে করেন?

মনোজ প্রামাণিক: আমাদের দেশে তিনটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিষয়ে পড়ালেখা করানো হয়। তার মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একটি অথবা দুটি ব্যাচ বেরিয়েছে। তারা এখনই যে সিনেমায় উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে, এমনটা আশা করি না। কারণ একাডেমিক জ্ঞানের পাশাপাশি মূল ইন্ডাস্ট্রিতেও তাদের সময় দিতে হবে। তবে আমার বিশ্বাস, একটা সময় এসব শিক্ষার্থী নিজেদের আত্মপ্রকাশ করতে পারবে।

প্রশ্ন: সরকারি অনুদানের সিনেমা ‘সেয়ানা’র কাজ কতটুকু এগিয়েছে?

মনোজ প্রামাণিক: গবেষণা ও চিত্রনাট্য ডেভেলপমেন্ট পর্যায়ে আছে। তাড়াহুড়া করতে চাইছি না। ধীরেসুস্থে পরিকল্পনামাফিক এগোতে চাই। প্রাথমিকভাবে পরিকল্পনা করেছি, আগামী ছয় মাসের মধ্যে শুটিং শুরু করব।

প্রশ্ন: সেয়ানা সিনেমার গল্প কী নিয়ে? 

মনোজ প্রামাণিক: ইংরেজ আমলের বিপ্লবী উদীচীর প্রতিষ্ঠাতা সত্যেন সেনের ‘সেয়ানা’ উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হবে সিনেমাটি। গল্পের প্রেক্ষাপট ১৯৪৭ সালের আগের সময় থেকে ১৯৪৯ সাল পর্যন্ত। সেই সময়ের নিম্নবর্গীয় পকেটমারদের জীবন, তৎকালীন রাজনীতি, অর্থনৈতিক অবস্থা ও দেশভাগের প্রভাব উঠে আসবে সিনেমার গল্পে। 

প্রশ্ন: সরকারি অনুদানের সিনেমা নির্মাণের জন্য নির্দিষ্ট সময় দেওয়া থাকে। সময়মতো কাজ শেষ করতে পারবেন?

মনোজ প্রামাণিক: মন্ত্রণালয় থেকে সিনেমা বানানোর জন্য যে সময় দেওয়া থাকে, এর মধ্যে শেষ করা অনেক চ্যালেঞ্জিং। গবেষণা, শুটিং লোকেশন নির্বাচন, শিল্পী বাছাই, শুটিং, পোস্ট প্রোডাকশন-সব মিলিয়ে অনেক কাজ থাকে। যাঁরা চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন তাঁরা এই বিষয়গুলো জানেন। সেই জায়গা থেকে এক বছরের সময়সীমা কোনো সিনেমার ক্ষেত্রে ঠিক আছে, আবার কিছু সিনেমার ক্ষেত্রে সময় বাড়ানোর প্রয়োজন। আমাদের সিনেমাটি পিরিয়ডিক্যাল, তাই একটু বেশি সময় লাগতে পারে। আমরা অবশ্যই কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই এগোব।

প্রশ্ন: পুরোনো সময়ের চিত্র এখন এসে পর্দায় ফুটিয়ে তোলা বেশ চ্যালেঞ্জিং। এটা নিয়ে আপনাদের প্রস্তুতি কেমন?

মনোজ প্রামাণিক: এই বিষয়টি আমরা খুব গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি। চিত্রনাট্যের ফাইনাল ড্রাফট তৈরি হওয়ার পর শুটিং লোকেশন চূড়ান্ত করব। সব লোকেশন হয়তো পাওয়া যাবে না। তাই কিছু সেট নির্মাণ করে শুটিং করার ভাবনা আছে। 

প্রশ্ন: অনেক অভিনয়শিল্পী প্রযোজনায় আসেন। তবে নিয়মিত থাকেন না। আপনার ক্ষেত্রেও তেমনটা হবে? 

মনোজ প্রামাণিক: আমি কিন্তু হুট করে সিনেমা প্রযোজনায় চলে আসিনি। তিন বছর ধরে প্রযোজনার সঙ্গে জড়িত। মনপাচিত্র নামে একটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আছে। আমরা নিয়মিত টেলিভিশন নাটক, স্বল্পদৈর্ঘ্য ও বিজ্ঞাপনের কাজ করছি। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবেও আমাদের কাজ প্রদর্শিত হয়েছে। একটি ফিচার ফিল্ম করেছি। ভবিষ্যতে কী হবে, এটা তো বলতে পারব না। এখন শিক্ষকতা করছি, অভিনয় করছি, প্রযোজনা করছি, সামনে হয়তো না-ও করতে পারি। তবে আমি চলচ্চিত্রকে ভালোবাসি। সরকারি অনুদান পাওয়াটা আমার জন্য অনুপ্রেরণার।

শেয়ার করুন