২২ জুন ২০১২, শনিবার, ০৪:৪১:০৩ অপরাহ্ন


প্রেসিডেন্ট সহ সকলের নিহত হওয়ার শঙ্কা
প্রেসিডেন্ট রাইসিকে বহনকারী বিধ্বস্ত হেলিকাপ্টারের প্রাণের অস্থিত্ব নেই
দেশ রিপোর্ট
  • আপডেট করা হয়েছে : ২০-০৫-২০২৪
প্রেসিডেন্ট রাইসিকে বহনকারী বিধ্বস্ত হেলিকাপ্টারের প্রাণের অস্থিত্ব নেই


ইরানের প্রেসিডেন্ট বহনকারী হেলিকাপ্টারটি যেখানে বিধ্বস্ত হয়েছে সে গ্রামের পৌছেছে উদ্ধারকারী দল। প্রচন্ড শীত ও ঠান্ডা আবহাওয়া ও কুয়াশায় উদ্ধারকার্য ব্যহত হওয়ায় সময় লাগছে উদ্ধারে। তবে হেলিকাপ্টারে আরোহীদের কেহই বেঁচে নেই। প্রেসিডেন্ট রাইসি সহ সবাই নিহত হয়েছেন বলে ধারনা করা হচ্ছে। ইরানের রাস্ট্রীয় টেলিভিশণ জানিয়েছে, হেলিকাপ্টারটি সম্পুর্ন পূড়ে গেছে। এতে কোনো প্রাণের অস্থিত্ব পাওয়া যাওয়ার সম্ভাবনা নেই।

ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আইআরআইএনএনের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটির দুর্ঘটনাস্থলে ‘কোনও জীবিত ব্যক্তি’ পাওয়া যায়নি।


ইরানি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে রয়টার্স লিখেছে, বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারটি পুড়ে পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে।

বিধ্বস্ত হওয়া ইরানি প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটিতে তিন জন কর্মকর্তা, একজন ইমাম, ফ্লাইট ও নিরাপত্তা দলের সদস্যসহ ৯ জন ছিলেন। ইরানের সশস্ত্র বাহিনী এআরজিসি পরিচালিত মিডিয়া আউটলেট সেপাহ জানিয়েছে, হেলিকপ্টারে ইরানি প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির আবদুল্লাহিয়ান, পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের গভর্নর মালেক রহমাতি, তাবরিজের জুমার নামাজ ইমাম মোহাম্মদ আলী আলেহাশেমের পাশাপাশি একজন পাইলট, কো-পাইলট, ক্রু প্রধান, নিরাপত্তা প্রধান এবং অন্য একজন দেহরক্ষী ছিলেন বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারটিতে।

এর আগে, রোববার (১৯ মে) আজারবাইজানের সীমান্তবর্তী এলাকা জোলফায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টার। তারা ইরানের সীমান্তবর্তী আজারবাইজানে একটি জলাধার প্রকল্প উদ্বোধন করে ফিরছিলেন।

দুর্ঘটনার পর থেকেই ইরানের প্রেসিডেন্ট নিখোঁজ ছিলেন। তাদেরকে উদ্ধারে মাঠে নামে উদ্ধারকারীরা। তবে ঘন কুয়াশা, বৃষ্টি ও পাহাড়ি এলাকা হওয়ায় উদ্ধার অভিযান ব্যাহত হচ্ছিল। প্রেসিডেন্ট রইসিকে উদ্ধারে তুরস্ক, রাশিয়া, আজারবাইজান, আরমেনিয়া, ইরাক উদ্ধারকারী দল পাঠানোর কথা জানিয়েছিল। ইরানি বার্তাসংস্থা ইরনা নিউজ জানিয়েছে, সেখানকার স্থানীয় মানুষজন জানিয়েছেন, তারা প্রচণ্ড জোরে কিছু আছড়ে পড়ার শব্দ শুনতে পেয়েছিলেন।

শেয়ার করুন